রাশিয়ার আলোচনার প্রস্তাবে রাজি ইউক্রেন, তবে…

Volodymir Zelenosky

বেলারুশের রাজধানী মিনস্কে ইউক্রেনের সঙ্গে আলোচনায় প্রস্তুত বলে জানিয়েছে রাশিয়া, তবে ইউক্রেন বলছে, বেলারুশকে ব্যবহার করে সামরিক অভিযান চালিয়েছে রুশ সেনারা। এ কারণে সে দেশের বাইরে তুরস্ক কিংবা অন্য কোথাও আলোচনায় বসতে চায় ইউক্রেন।

বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলদিমির জেলেনস্কি রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনার আগ্রহ প্রকাশ করলেও স্থান নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন।

অনলাইনে দেয়া বক্তব্যে জেলেনস্কি বলেন, ‘ওয়ারশ (পোল্যান্ডের রাজধানী), ব্রাতিস্লাভা (স্লোভাকিয়ার রাজধানী), বুদাপেস্ট (হাঙ্গেরির রাজধানী), ইস্তাম্বুল (তুরস্কের বৃহত্তম নগরী) কিংবা বাকু (আজারবাইজানের রাজধানী)। আমরা এ সবগুলো নাম প্রস্তাব করেছি।’

ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের চতুর্থ দিন রোববার রাশিয়া আলোচনার ইচ্ছার কথা জানাল। এর আগে দেশটি শর্তাধীন আলোচনার প্রস্তাবিত দিয়েছিল ইউক্রেনকে।
রাশিয়ার আলোচনার প্রস্তাবের মধ্যেই ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলের একটি শহর দখল করে নিয়েছে রুশ সেনারা।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর নোভা কাকোভকা নিজেদের করে নিয়েছে রাশিয়ার বাহিনী। রুশ সেনারা এখন নোভা কাকোভকা বা নিউ কাকোভকা দখল করেছে। এটি খুব ছোট শহর, তবে এটি কৌশলগত দিক বিবেচনায় ইউক্রেনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবিসির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

শহরটির অবস্থান দিনিপার নদীর পারে এবং এটি সরাসরি ক্রিমিয়ান উপদ্বীপে পানি সরবরাহ করে। শহরটির মেয়র ভলদিমির কোভালেঙ্ক বলেন, রাশিয়ার সেনারা শহর দখল করে নিয়েছে এবং শহরের নির্বাহী কমিটি বাতিল করে দিয়েছে। তারা সব ধরনের ভবন থেকে ইউক্রেনের পতাকা নামিয়ে ফেলেছে।

বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ইউক্রেন দখলে দক্ষিণ দিক থেকে রাশিয়ার অগ্রগতি খুব বেশি। রুশ সেনারা এর আগে থেকেই দক্ষিণের খোরসান, মাইকোলভ ও মেলিটোপল শহর দখলের হুমকি দিয়ে আসছে।