বরিশালে ঘুরে ঘুরে দেওয়া হচ্ছে করোনা প্রতিষেধক টিকা

নগরীতে ঘুরে ঘুরে করোনা প্রতিষেধক টিকা দিয়েছে বিসিসির ভ্রাম্যমান কেন্দ্র। ১০টি মাইক্রোবাসকে ভ্রাম্যমান টিকা কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করে টিকা দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ভ্রাম্যমান টিকা কেন্দ্র থেকে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারী গনটিকা কার্যক্রম সফল করতে ব্যাপক প্রচার-প্রচারনা করা হয়েছে।

সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর নির্দেশে বৃহস্পতিবার দিনভর নগরীতে টিকাদান ও প্রচার কার্যক্রম চালানো হয়েছে। এর মাধ্যমে করোনা প্রতিরোধে জন সচেতনতামুলক প্রচারনা চালানো হয়। আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলমান থাকবে বলে জানিয়েছে সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগ।

তারা জানিয়েছে অনেক ক্ষেত্রেই কেন্দ্রে গিয়ে টিকা নেয়ায় নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা পোহাতে হয়েছে। সেই পরিস্থিতি এড়াতে এবং নগরবাসিকে টিকা নিতে আরো আগ্রহী করে তুলতে এমন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে নগরীর সকল শ্রেনীর বাসিন্দারা খুব সহজেই টিকা কার্যক্রমের আওতায় আসবে। একই সাথে করোনা সংক্রান্ত যে কোন ধরনের স্বাস্থ্য সহায়তা খুব সহজেই মিলবে বলে জানিয়েছে বিসিরি স্বাস্থ্য বিভাগ। বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান, ১০টি মাইক্রোবাসকে ভ্রাম্যমান টিকা কেন্দ্র হিসেবে তৈরি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার থেকে এই কেন্দ্রগুলো নগরীর বিভিন্ন স্থানে ঘুরে টিকাদান শুরু করেছে। প্রতিটি কেন্দ্রে ২জন স্বাস্থ্যকর্মী, ২ জন রেডক্রিসেন্টের কর্মী এবং দুই জন ছাত্রলীগ কর্মী রয়েছে। এই কেন্দ্র গুলো থেকে হটলাইন নম্বরে যোগাযোগের মাধ্যমে নগরীর যে কোন স্থান থেকে টিকা গ্রহন করতে পারবেন যে কেউ। এছাড়া কেন্দ্রগুলো থেকে মাইকিংয়ের মাধ্যমে টিকা গ্রহনে আগ্রহী করে তুলতে প্রচারনা চালানো হচ্ছে। বিসিসির ডা. খন্দকার শুভ্র জানিয়েছেন, প্রথম দিন ১০টি মাইক্রেবাসে ৩০০ করে মোট ৩ হাজার জনকে টিকা দেয়া হয়েছে।

বিসিসির স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে জানানো হয়েছে, আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারী ভ্রাম্যমান কেন্দ্র ছাড়াও আরো ২০ কেন্দ্রে করোনার টিকা দেয়া হবে। এসব কেন্দ্র হলো- নগরীর রুপাতলী বাস টার্মিনাল, নথুল্লাবাদ বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট, আদালতের সামনে, অশ্বিনী কুমার হলের সামনে, মুক্তিযোদ্ধা পার্ক, ত্রিশ গোডাউন, চৌমাথা লেক, বঙ্গবন্ধু উদ্যান, কাউনিয়া বাশের হাট নগ মাতৃসদন কেন্দ্র, রুপাতলী নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্র, জুমির খান নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও পলাশপুর নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্র।

এছাড়াও স্থায়ী বঙ্গবন্ধু একাডেমি, শেবাচিম হাসপাতাল, সদর হাসপাতাল, পুলিশ হাসপাতাল, কালিবাড়ি রোডের মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্র, হোলিংবেরি রেডক্রিসেন্ট হাসপাতাল ও পপুলার ডায়গনষ্টিক সেন্টারে টিকা দেয়া হবে। অপরদিকে ভ্রাম্যমানভাবেও এ টিকা দেয়া হবে।