নোবিপ্রবিতে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালিত

নোবিপ্রবিতে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালিত

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) যথাযোগ্য মর্যাদায় ‘জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস’ ৭ই মার্চ পালন করা হয়েছে । এ উপলক্ষে আজ সোমবার (৭ই মার্চ) জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জাতীয় সংগীত পরিবেশন, সম্মিলিতভাবে দাঁড়িয়ে ৭ই মার্চর ভাষণ শ্রবণ, শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সূর্য উদয়ের সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালইয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ দিদার-উল-আলম। সকাল ৯ টায় ৭ মার্চ ‘জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস’ উপলক্ষে প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে র‍্যালি শুরু হয়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শেষ হয়।

শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ দিদার-উল-আলম বলেন, ‘১৯৭১ সালের ৭ মার্চ জাতির উদ্দেশ্যে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে যে ভাষণ প্রদান করেন তা এক ঐতিহাসিক মহাকাব্য। একই সাথে পথিবীর ইতিহাসের অন্যতম শ্রেষ্ঠ একটি ভাষণ। বঙ্গবন্ধুর এ ভাষণে উদ্বুদ্ধ হয়েই বাঙালি ঝাঁপিয়ে পড়েছিল মাতভূমিকে শত্রু মুক্ত করতে।

এ সময় তিনি আরো বলেন, বাংলাদশ যতদিন থাকবে, বাঙালি জাতি যতদিন থাকবে ততদিন এই ভাষণ এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ টিকে থাকবে । আজকের এই ঐতিহাসিক দিনে আমি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি, একই সাথে মহান মুক্তিযুদ্ধর সকল শহিদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। জাতির পিতার আদর্শকে বুকে ধারণ করে বাংলাদশ এগিয়ে যাবে, আজকের এই ঐতিহাসিক দিনে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।’

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন নোবিপ্রবির উপ-উপাচার্য ও জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবদুল বাকী, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ফারুক উদ্দিন, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আনোয়ারুল বাশার, অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমদ, রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন অনুষদসমূহের ডিন, ইনস্টিটিউটের পরিচালকবৃন্দ, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, হলের প্রভোস্ট, শিক্ষক সমিতি ও অফিসার্স এসোসিয়শনের সদস্যবৃন্দ, দপ্তর প্রধান এবং ছাত্র শিক্ষক, কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ।