নন্দীগ্রামে স্বামীকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে স্ত্রীর শ্লীলতাহানি

নন্দীগ্রামে স্বামীকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে স্ত্রীর শ্লীলতাহানি

বগুড়ার নন্দীগ্রামে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বসতবাড়িতে হামলা ও স্বামীকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে স্ত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। দুই নারীসহ আহত তিনজনকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গত শুক্রবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার থালতা-মাঝগ্রাম ইউনিয়নের গুলিয়া কৃষ্ণপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন ওই গ্রামের জনাব আলীর স্ত্রী আনোয়ারা বিবি (৫৫), ছেলে মামুন প্রামাণিক (৩২), তার স্ত্রী রিয়া মনি (২৫)। এদের মধ্যে মামুন গুরুতর আহত। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।

স্থানীয় ও প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, গুলিয়া কৃষ্ণপুর গ্রামের ষাটোর্ধ বৃদ্ধ জনাব আলীর পরিবারের সঙ্গে জমিজমা সংক্রান্তে একই গ্রামের প্রতিপক্ষ সালাম, হাসিব, সাইফুল, হাফিজার, এনামুল, ইদ্রিসসহ কয়েকজন প্রভাবশালীদের পূর্ব বিরোধ চলছিল। শুক্রবার সন্ধ্যায় বৃদ্ধ জনাব আলীর সঙ্গে প্রতিপক্ষের কথা-কাটাকাটি হয়। রাত ৮টার দিকে আতর্কিতভাবে বসতবাড়িতে হামলা করে ওই বৃদ্ধ ও তার বৃদ্ধা স্ত্রীকে মারপিট করা হচ্ছে জেনে ছেলে মামুন ও তার স্ত্রী এগিয়ে যায়।

এসময় স্বামীকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে স্বামীর চোখের সামনেই স্ত্রীকে মারপিট ও শ্লীলতাহানি করে প্রতিপক্ষের লোকজন। ওই নারীর কান থেকে স্বর্ণের দুল ছিঁড়ে নেয়। এতে কানের লতি ছিঁড়ে যায়। বসতবাড়িতে লুটপাট করে প্রতিপক্ষরা চলে যায়। পরে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। হামলার ঘটনা নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য মুকুল হোসেন।

নন্দীগ্রাম থানার ওসি মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।