শুক্রবার, আগস্ট ১২, ২০২২
Homeঢাকা বি.মানিকগঞ্জঘিওরে সততার দৃষ্টান্তে ভালবাসায় সিক্ত দু'যুবক

ঘিওরে সততার দৃষ্টান্তে ভালবাসায় সিক্ত দু’যুবক

মানিকগঞ্জের ঘিওরে এক ব্যবসায়ীর ২ লাখ ৩৭ হাজার টাকা হারানোর একদিন পর ফিরিয়ে দিয়ে সততার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করছেন দুই যুবক। ঢাকা আরিচা মহাসড়কের উপজেলার বানিয়াজুরী ইউনিয়নের ক্রসব্রীজ এলাকায় কুড়িয়ে পাওয়া এই টাকা ফেরত দিতে তাদের প্রাণান্ত চেষ্টার প্রশংসা করেছেন সবাই।

অবশেষে সোমবার রাত রাত ৯টার দিকে ইউপি চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে হারানো টাকার প্রমাণ পেয়ে টাকাগুলো প্রকৃত মালিককে ফেরত দেওয়া হয়। এসময় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এসআর আনসারী বিল্টু, সমাজ সেবক আহমেদ ইব্রাহীম যীশু, সাংবাদিক রিপন আনসারী, স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ আল আজাদ,
ব্যবসায়ী মোঃ মিরন মিয়া, বারাঠা উত্তরণ সংঘের সাধারন সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন তপু, টাকার মালিক মোঃ রেজাউল করিম, টাকা কুড়িয়ে পাওয়া দুই যুবকসহ
এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সততার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী দুই যুবক হলেন- বানিয়াজুরীর (গিলন্ড) গ্রামের মোঃ তুষার ও বাগ বানিয়াজুরী গ্রামের জগত জীবন কর্মকার। মোঃ তুষার আব্দুর রশিদের ছেলে, সে মানিকগঞ্জ র্যাংগস ইলেকট্রনিক্স শোরুমের কর্মচারী এবং জগত জীবন বাই বানিয়াজুরী গ্রামের বেকার যুবক। অর্থকষ্টে থাকার পরও এই যুবকদ্বয় লোভের বশবর্তী না হওয়ায় এলকাবাসীর কাছে প্রশসাংয় ভাসছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও প্রশংসা স্ট্যাটাসে সিক্ত তাঁরা।

হারানো টাকার মালিক মোঃ রেজাউল করিম মানিকগঞ্জের মূলজান এলাকায় পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের কাজের ঠিকাদার। সে পাবনা জেলার বেড়া উপজেলার কাশিনাথপুর
ইউনিয়নের হরিদেবপুর গ্রামের মৃত ওহাব মিয়ার ছেলে। কাজের সুবাদে তিনি মানিকগঞ্জে থাকেন।

মোঃ তুষার বলেন, রবিবার রাত আটটার দিকে কাজ শেষে মানিকগঞ্জ থেকে বাড়ির উদ্দেশ্যে মেক্সি গাড়িতে উঠি। পথিমধ্যে কয়েকজন যাত্রী উঠা নামাও করেন। আমি গাড়ি থেকে নামার সময় দেখি একটি শপিং ব্যাগ পড়ে রয়েছে। গাড়িতে আর কোন যাত্রী ছিল না, তখন আমি ও আমার এলাকার জগত জীবন শপিং ব্যাগ খুলে দেখি টাকার কয়েকটি বান্ডিল। এই টাকাগুলো কুড়িয়ে নিয়ে বানিয়াজুরীর বারাঠা উত্তরণ সংঘের সাধারন সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন তপুর কাছে যাই এবং টাকার
মালিককে খুঁজে এই টাকাগুলো ফেরত দেয়ার ব্যবস্থা করার অনুরোধ করি। এরপর আমরা তিনজন মিলে স্থানীয় বানিয়াজুরী ইউনয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এসআর আনসারী বিল্টুর কাছে টাকাগুলো জমা দেই। ইউপি চেয়ারম্যান ও আমরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে টাকা প্রাপ্তি সংক্রান্ত স্ট্যাটাস দেই। সোমবার রাতে উপযুক্ত
প্রমাণ দিয়ে টাকার মালিককে টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে। ভাল কাজ করে যে এত আনন্দ আর ভালবাসা পাওয়া যায়, তা আগে বুঝিনি।

জগত জীবন বলেন, মহাসড়কের কয়েকটি স্টেশনে “কারো টাকা হারানো গিয়েছে না কি? কিছু টাকা পাওয়া গেছে। উপযুক্ত প্রমাণ দিয়ে টাকাগুলো ফেরত নিয়ে যাবেন” মর্মে প্রচার করতে থাকি। প্রকৃত মালিককে টাকা ফেরত দিতে পেরে খুব ভালো লাগছে।

টাকা প্রাপ্তির পর মোঃ রেজাউল করিম বলেন, আমি পল্লী বিদুৎ এর কাজের ঠিকাদার। ব্যবসায়িক প্রয়োজনে মানিকগঞ্জ থেকে টাকাগুলো নিয়ে পল্লী বিদুৎ (মূলজান) স্টেশনে নেমে যাই। মেক্সি গাড়িতে রাত আটটার দিকে পকেট থেকে টাকার ব্যান্ডেলগুলো অসাবধানতাবশত পড়ে যায়। পরে তিনি ওই সড়ক ও আশপাশে অনেক খোঁজাখুঁজির পরও টাকা না পেয়ে বাড়ি ফিরে যান। এমনকি তিনি এ টাকা আবার পাবেন এমন আশাও ছেড়ে দেন। পরে ফেসবুকে ও লোকমুখে খোঁজ পাওয়ার পর
টাকাগুলো ফিরে পেলাম। এই যুগে হারানোর পর এতগুলো টাকা ফেরত পেয়ে সত্যিই অনেক আনন্দিত। তাঁরা যে সততার দৃষ্টান্ত দিয়েছেন, আল্লাহ তাঁদের অনেক
ভাল করবেন।

স্থানীয় বানিয়াজুরী ইউপি চেয়ারম্যান আনসারী বিল্টু বলেন, দরিদ্র হলেও তারা টাকার প্রতি লোভ করেননি। সততার এমন নজির বর্তমানে বিরল। আমার জিম্মায় ও তদারকিতে রেখে প্রমাণ পেয়ে প্রকৃত মালিককে টাকাগুলো ফেরত দেয়া হয়েছে।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular